আমাদের দেশে প্রচলিত একটি প্রবাদ আছে যার টাকা আছে তার সুখ নেই, আর যার সুখ নেই তার টাকা আছে। Read in English

মূলত টাকা এবং সুখের পরিমাপটা একটা ব্যস্তানুপাতিক হারে  ধরা হয়। কিন্তু আসলেই কি তাই আর গবেষকরা তাহলে কি বলছে। মূলত আমরা পার্থিব জীবনে সবাই মনে করে থাকি সব  সুখের মূল চালিকা শক্তি হচ্ছে টাকা। টাকা ছাড়া কোন সুখ  কেনা সম্ভব নয়। এখন কথা হতে পারে তাহলে কি সুখ আসলে টাকা দিয়ে কেনা সম্ভব যদি তাই হয়ে থাকে তাহলে গবেষকদের গবেষণার অনুযায়ী আমরা যেগুলো পাই সেগুলো নিম্নে আলোচনা করার চেষ্টা করব আমরা।  যদি তাই হয়ে থাকে তাহলে গবেষকদের গবেষণার অনুযায়ী আমরা যে বিস্তারিত আলোচনা করব আজকে।

টাকার সাথে সুখের সম্পর্ক

টাকা থাকলেই কি সুখ কেনা যায়? অনেকেই বলবেন, হ্যাঁ যায়। আবার একদল বলেন, টাকার সঙ্গে মনের শান্তি, স্বস্তির কোনো সম্পর্ক নেই। আবার অন্যরা বলবেন টাকার সাথেই সবসময় সম্পর্ক রয়েছে প্রকৃত সুখ কিনতে যেটা প্রয়োজন সেটা হচ্ছে অঢেল টাকা। এই নিয়ে তর্ক চলে। বহুদিন ধরে। আসলে কি টাকা থাকলেই সুখ কেনা যায়?

সম্প্রতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জেনারেল সোশ্যাল সার্ভে (জিএসএস) একটি গবেষণার ফল প্রকাশ করেছে । তাতে জানানো হয়েছে, টাকা আর সুখের সম্পর্ক রয়েছে। ৪৪ হাজার মানুষের উপরে বিভিন্ন উপায়ে ১৯৭২ সাল থেকে এই বিষয়ে গবেষণা চালান তারা। গত সপ্তাহে ‘ইমোশন’নামের একটি পত্রিকায় ওই গবেষণার ফল প্রকাশ করা হয়েছিল। গবেষণা থেকে সেখানে বলা হয়েছিল ৩০ বছরের বেশি মানুষের জন্য মনের শান্তি এবং সুখের জন্য যেটা মনে কাজ করেছে সেটি হচ্ছে টাকা। ৩০ বছর বয়স পরে একটা মানুষের স্বাচ্ছন্দ্যে জীবনযাপন করার জন্য  সব থেকে বেশি প্রয়োজন সেটি টাকা। গবেষনায় বলা হয় একটা মানুষের যদি বয়স বৃদ্ধির সাথে আয়ের উৎসটা বহাল থাকে তবে সে মানসিকভাবে যথেষ্ট সুখী হয় এবং পারিপার্শ্বিকতার সাথে খাপ খাইয়ে নিতে পারে। মনের শান্তি থেকে শুরু করে স্বস্তি, সবটাই অর্থের উপর নির্ভরশীল।

টাকাতেই কি আসল সুখ?

ধরুন ৩০ বছর পরে আপনার কোথাও যেতে ইচ্ছা করলো কিন্তু আপনি টাকার জন্য  সেখানে যেতে পারলেন না তাহলে বিষয়টা কেমন হল, অবশ্যই আপনি টাকার জন্য আপনার সে ভ্রমণের ইচ্ছেটাকে বিসর্জন দিতে বাধ্য হবেন। তাহলে বিষয়টা এমনই দাঁড়ালো যে আপনি টাকা থাকলেই আপনার ভ্রমণের ইচ্ছাটাকে পূরণ করতে পারতেন এবং ভ্রমণের সুখটা  নিতে পারতে না।

000306-bangladesh-pratidin-u

আবার যুবক মানুষের ক্ষেত্রে গবেষণায় দেখা হয় যখন অনেক বন্ধু একসাথে কোথাও যায় কোন কারনে আপনি সেখানে যেতে পারলেন না। ধরুন আপনার কাছে পর্যাপ্ত টাকা আছে তাই আপনি তাদের  সাথে সময় কাটতে পারছেন।  কিন্তু আপনার কাছে টাকা নাই সেই কারণে আপনি তাদের সাথে সময় কাটাতে পারছেন না এবং আপনি সেই সুন্দরতম মুহূর্ত থেকে নিজেকে বঞ্চিত করছেন। যদি গবেষণার ভাষায় বলা হয় তাহলে অবশ্যই আপনি বঞ্চিত হচ্ছেন না, টাকা না  থাকার কারণে আপনাকে বঞ্চিত হতে হচ্ছে।

সুখের পিছনে টাকার সম্পর্ক

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সব থেকে দীর্ঘদিন ধরে চলা গবেষণাগুলির মধ্যে এটি একটি। অর্থ সুখ কিনতে পারে না- এমন প্রবাদকে চ্যালেঞ্জ করতেই এই গবেষণা করা হয়েছিল। গবেষণায় সুখের কয়েকটি স্তর ধরা পড়়েছে। এছাড়া গত দশকের থেকে বর্তমানে সুখের সঙ্গে উপার্জনের সম্পর্ক অত্যন্ত দৃঢ় বলে জানানো হয়েছে।

সর্বোপরি একটা কথা বলা যায় প্রত্যেকটা সুখের পিছনে অর্থের একটি বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। কেননা আপনি আপনার পরিবার বা পরিজনের  জন্য সেটাই করতে চান না কেন সে ক্ষেত্রে আপনার প্রধান উপকরণ হিসেবে যেটি সাহায্য করবে সেটি হচ্ছে টাকা। কেননা টাকা না থাকলে আপনি তাদের পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা দিতে ব্যর্থ হবেন এবং সেই ক্ষেত্রে আপনার সুখের মুহূর্তটি অবশ্যই আর থাকবেনা তখন আপনি নানাবিধ অশান্তিতে ভোগেন।  তাই বয়স তিরিশ হওয়ার পূর্বেই অবশ্যই আমাদের পর্যাপ্ত টাকা আয় করার রাস্তা খুঁজে বের করতে হবে।  যেন  ৩০ বছর পরে অর্থের অভাবে আমরা কোথাও যাওয়া থেকে বন্ধুদের সাথে সময় কাটানো থেকে বঞ্চিত না হই।

Leave a Reply

Your email address will not be published.