ওজন কমাতে কে না চায়। বাড়তি ওজন আপনার শরীরের জন্য যথেষ্ট সমস্যাজনক। তাই আপনার বাড়তি ওজন কমিয়ে ফেলুন খুব সহজেই। ওজন কমানোর ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট কোন সময় বেছে নিবেন সেটা সম্পূর্ন আপনার উপর নির্ভর করে। আজকের আমাদের এই আলোচনা কিভাবে আপনি সকালে ওজন কমানোর উপায় হড়ে তুলবেন তার উপরে। যে সকল নিয়ম কানুন মেনে সকালবেলায় আপনি আপনার ওজন কমাতে পারেন সেগুলো আপনাদের সামনে তুলে ধরা হচ্ছে। আপনার ওজন কমানোর চেষ্টায় দ্রুত সাফল্য আনবেন এমন আটটি সকালের অভ্যাস নিয়ে আমরা আজকে আলোচনা করব। Read in English

১. আধা লিটার পানি খাওয়া

সকালের নাস্তা খাবার আগে আধা লিটার পানি পান করে নেবেন। এতে পেটও ভরে আসবে যাতে করে আপনি অল্প করে নাস্তা খেতে পারবেন এবং পানিতে কোন ক্যালোরি নেই যেটা আপনার ওজন বাড়িয়ে দেবে না।তাই নাস্তার আগে নিশ্চিন্তে আধা লিটার পানি পান করুন। দিনের অন্যান্য সময়ও এই টেকনিক ব্যবহার করতে পারেন খাওয়ার আগে আধা লিটার পানি খেয়ে তারপর খাওয়া শুরু করবেন এতে করে আপনি স্বাভাবিকভাবে যতটা খেতেন তার চেয়ে কম করে খেলে পেট ভরে আসবে এবং সেটা ওজন কমাতে সাহায্য করবে।

২.দিনের নাস্তা ঠিক করে ফেলা

আমাদের যখন খিদা লাগে অনেক সময় আমরা অস্বাস্থ্যকর খাবার খেয়ে ফেলি। এই একটু সিঙ্গারা, বার্গার, ফুচকা, চটপটি, পিয়াজু, বেগুনি ইত্যাদি। এগুলো স্বাস্থ্যকর খাবার নয় এটা আমরা সবাই জানি তবুও লোভ সামলানো টা কষ্টকর হয়ে পড়ে। এইটা ঠেকানোর একটাই উপায় হতে পারে, সকালে যদি আপনি আপনার দিলে নাস্তা গুলো ঠিক করে রাখেন ক্ষুধা লাগলে কি খাবেন এটা যদি আগে থেকে ঠিক করে রাখেন ধরুন আপনি একটা বক্সের কিছু ফল কেটে সাথে নিয়ে গেলেন অথবা কিছু বাদাম বা ঘরে তৈরি যেকোনো স্বাস্থ্যকর খাবার হতে পারে।

৩. সকালে হেঁটে হেঁটে কাজে বা স্কুলে যাওয়া

সকালে যখন কাজে যাচ্ছেন বা বাচ্চাকে স্কুলে নিয়ে যাচ্ছেন তখন দেখুন হেঁটে যাওয়া যায় কিনা। বেশি দূরে হলে গন্তব্য স্থানে যাওয়ার আগেই নেমে ১০ থেকে ১৫ মিনিট হেঁটে আপনার গন্তব্য স্থানে পৌঁছালে। আস্তে আস্তে হাটার পরিমাণটা বাড়াবেন এবং হাঁটার সময় দ্রুত হাঁটার চেষ্টা করবেন।

৪. চিনি ছাড়া চা কফি খাওয়া

সকালে যদি আপনাদের চা কফি খাওয়ার অভ্যাস থাকে তাহলে সেই চা-কফি গুলো চিনি ছাড়া খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তোলেন। সুস্থ থাকার জন্য আলাদা করে চিনি খাওয়া কোন প্রয়োজন নেই। এখান থেকে শরীর আলাদা কোন পুষ্টি পায় না তাই স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস এ চিনি যত সম্ভব এড়িয়ে চলাই ভালো। চা-কফি তো চিনি খাওয়া বাদ দিলে বা চিনি এড়িয়ে চলে ওজন কমাতে সাহায্য করবে। আবার অনেকেই দেখা যায় চায়ের সাথে বিস্কুট খান। তবে ওজন কমানোর জন্য চায়ের সাথে বিস্কুট খাওয়া যাবেনা কারণ বিস্কিটের মধ্যে চিনি দেওয়া থাকে যা শরীরের ওজন বাড়িয়ে দেয়।

৫. সকালে ওজন মাপা

গবেষণায় দেখা গেছে যারা নিয়মিত ওজন মাপবেন তারা ওজন কমাতে বেশি সক্ষম হয়  তাই সকালে উঠে আপনারা আপনাদের ওজনটা মেপে ফেলুন। ওজন মাপার নিয়ম হচ্ছে- সকালে বাথরুম সেরে খালি পেটে ওজন মাপা, প্রতিদিন একই কাপড় বা একই ধরনের কাপড় পড়ে ওজন মাপা, ওজনটা একটা খাতায় বা ক্যালেন্ডারে লিখে রাখা। এক্ষেত্রে আপনি সহজেই দেখতে পারবেন যে আপনার ওজন বৃদ্ধি পাচ্ছে না কমে যাচ্ছে।

৬. সকাল সকাল ব্যায়াম করা

ওজন কমাতে হলে যে ব্যায়াম করতে হবে এটা আপনারা সবাই জানেন। তবে সারাদিনের ব্যস্ততায় এটা পিছোতে পিছোতে দেখা যায় যে আর বাস্তবায়িত করা হয় না।  তাই সকাল সকাল আপনারা ব্যায়ামটা সেরে ফেলতে পারেন। সেটা যেকোনো ধরনের ব্যায়াম হতে পারে, দড়ি লাফ, দ্রুত হাঁটা, দৌড়, উঠবস ইত্যাদি। যেটা সুবিধা হয় এবং ভাল লাগে এমন ব্যায়াম বেছে নিয়ে আপনি সকাল সকালেই ব্যায়াম টা সেরে ফেলছেন।

৭. পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুমানো

সুস্থ থাকতে আমাদের যেমন খাদ্য দরকার, পানি দরকার, তেমনি ঘুম দরকার।। আর ঘুম যে কেবল বিশ্রামের জন্য তা নয় আমরা যখন ঘুমায় তখন আমাদের ব্রেইন সচল থাকে এবং অনেকগুলো গুরুত্বপূর্ণ কাজ করে। এখন অনেকে প্রশ্ন করতে পারেন যে ঘুমের সাথে ওজন কমানোর কি সম্পর্ক? সম্পর্ক আছে অনেক গবেষণায় দেখা গেছে ঘুম কম হলে অতিরিক্ত ওজন বৃদ্ধির সম্ভাবনা আছে কেননা আমরা যখনই জাযগা থাকি তখনই আমাদের ক্ষুধা লাগে কিছু খেতে ইচ্ছে করে আবার অনেক সময় দেখা যায় যে রাতে খাবার পরে ঘুমাতে দেরি হলে সেই সময়টাতে স্নাক্স জাতীয় কিছু খেতে ইচ্ছা করে যার ফলে আমাদের ওজন বৃদ্ধি পেতে পারে। সাধারণত প্রাপ্ত বয়স্কদের সাত থেকে আট ঘণ্টা ঘুমানোর প্রয়োজন। যদি দেখেন যে ঘুমের পরিবর্তন ঘটছে, পরিমাণমতো ঘুম হচ্ছে না তাহলে ঘুমের বদলে ফেলতে পারেন।

৮. দিনের জন্য একটা একশন পয়েন্ট ঠিক করা

সকালে ওজন মাপার পর সেদিনের জন্য একটা নির্দিষ্ট একশন পয়েন্ট  ঠিক করে নিতে পারেন। ঠিকমতো পালন করতে পারলে সেটা ওজন কমাতে অনেক বেশি সহায়ক হবে।

তাই আজকে বা কালকের জন্য ওজন কমানোর চিন্তা বাদ দিয়ে এখন থেকেই শুরু করে দিন আপনার চেষ্টা। আর সেই চেষ্টার ফলটি আপনি একদম পরিপূর্ণ করতে পারেন যদি আপনি সেটি সকাল বেলার অভ্যাসে পরিণত করতে পারেন। তাই সকাল বেলাই হতে পারে আপনার ওজন কমানোর সর্বোত্তম সময়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.