অলিভ অয়েলের উপকারিতা : অলিভ বা জলপাই ভিটামিন সি সমৃদ্ধ একটি ফল। এই ফল থেকে যে তেল তৈরি করা হয় তাকে বলা হয় অলিভ অয়েল। সুস্বাস্থ্যের জন্য অলিভ অয়েল খুবই প্রয়োজনীয়। এই ছেলে রয়েছে ওমেগা ৬ এবং ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড। এছাড়াও এতে এলিক এসিড নামক মনস্যাচুরাটেড ফ্যাট আছে। বিশেষজ্ঞরা সাদা তেলের পরিবর্তে অলিভ অয়েল বা জলপাইয়ের তেল খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। আমাদের আজকের এই পোস্টের মাধ্যমে আমরা অলিভ অয়েলের উপকারিতা সম্পর্কে জানব। অলিভ অয়েল আমাদের শরীরে কি কি উপকার করে থাকে সে বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য আজকের এই পোস্টে উল্লেখ করা হয়েছে। Read in English

অলিভ অয়েলের উপকারিতা

অলিভ অয়েল ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি আটকাতে ভূমিকা রাখে। এলিক এসিড প্রাকৃতিক প্রদাহনাশক হিসেবে কাজ করে। অলিভ অয়েল আমাদের শরীরের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অনেক উপকার করে থাকে। অলিভ অয়েলের উপকারিতা সমূহ নিচে উল্লেখ করা হলো।

অলিভ অয়েলের উপকারিতা

পেটের সমস্যা দূরে রাখে

অলিভ অয়েল বদহজমের মতো সমস্যা দূর করে। যেখানে বদহজমের মতো সমস্যাগুলো এখন আমাদের নিত্যদিনের সঙ্গী হয়ে উঠেছে সেখানে অলিভ অয়েলে উপস্থিত এলিক এসিড এ সমস্যা দূরীকরণে সাহায্য করে থাকে। চিকিৎসকরা এই ধরনের সমস্যার ক্ষেত্রে প্রতিদিন এক চামচ অলিভ অয়েল এর সাথে সমপরিমাণ লেবুর রস খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। অলিভ অয়েল কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো সমস্যা থেকেও দূরে থাকতে সাহায্য করে। অলিভ অয়েলের উপকারিতা

কানের সমস্যা দূর করে

কানের চুলকানি বা দুর্গন্ধযুক্ত সমস্যা হলে অলিভ অয়েল ব্যবহারের উপকার পাওয়া যায়। সামান্য পরিমাণ অলিভ অয়েল একটি কটনবাডের ভিজিয়ে সাবধানে কানের মধ্যে ব্যবহার করলে এধরনের সমস্যা থেকে উপকার পাওয়া যায়।

ব্যথা দূর করতে সাহায্য করে

শরীরের যেকোনো ধরনের ব্যথা দূর করতে অলিভ অয়েল খুবই উপকারী। ২০০ মিলি পানির সঙ্গে ২০ চামচ অলিভ অয়েল ভালোভাবে মিশিয়ে ব্যথার স্থানে ১৫ মিনিট ধরে মালিশ করলে উপকার পাওয়া যায়। এভাবে পুরাতন ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়া যেতে পারে। 

নাক ডাকা বন্ধ করতে

অলিভ অয়েল এর ঔষধি গুণাবলী নাক ডাকা বন্ধ করে। কণ্ঠনালীকে পিচ্ছিল করে নাক ডাকা প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে অলিভ অয়েল। ঘুমোতে যাওয়ার আগে এক চামচ অলিভ অয়েল খেলে আপনি নাক ডাকা দূর করতে পারেন।

নখের যত্নে

নখের যত্নে অলিভ অয়েল খুব উপকারী। নখের ভঙ্গুরতা দূর করে নখের চামড়া বাইরের স্তর সুন্দর ও কোমল রাখে। কয়েক ফোঁটা এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল হাতের আঙুলে নিয়ে নখের চারপাশে মালিশ করলে আস্তে আস্তে নখের ভঙ্গুরতা কমে আরো শক্ত ও উজ্জ্বল হয়ে ওঠে।

অলিভ অয়েল খাওয়ার উপকারিতা

আমাদের স্বাস্থ্য সুন্দর ও ভালো রাখতে নিয়মিত অলিভ অয়েল খাদ্য তালিকায় রাখা উচিত। বহু বছর ধরে অলিভ অয়েল মানুষের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সাহায্য করে আসছে। পুষ্টিবিদদের মতে নিয়মিত অলিভ অয়েল খেলে যে কোন ধরনের রোগ প্রতিরোধ করা যায়। সকল ধরনের রোগ থেকে মুক্ত রাখতে এবং দেহকে সুন্দর ও সুস্থ রাখতে নিয়মিত অলিভ অয়েল খাওয়া উচিত। অলিভ অয়েলের উপকারিতা

অলিভ অয়েল খেলে আমাদের শরীরে যে সকল উপকারগুলো হয়ে থাকে সেগুলো হলো-

ওজন নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে

দ্রুত ওজন কমাতে অলিভ অয়েল এর জুড়ি মেলা ভার। যারা দ্রুত ওজন কমাতে চান নিয়মিত অলিভল খেতে পারেন। অলিভ অয়েল হজম শক্তি বৃদ্ধি করে এবং রক্তের শর্করা নিয়ন্ত্রণে রাখে। অলিভ অয়েলের থাকা ভিটামিন ই, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ইত্যাদি ওজন হ্রাস করতে সাহায্য করে।

ক্যান্সার দূর করে

প্রতিদিন অলিভ অয়েল সেবন করলে ক্যান্সারের ঝুঁকি অনেকটাই কমানো সম্ভব। অলিভ অয়েলে থাকা অলেরোপিয়ান নামক উপাদান মহিলাদের স্তন ক্যানসারের সম্ভাবনা কমায়। নিয়মিত অলিভ অয়েলের সঠিক ব্যবহারে ক্যান্সারের সম্ভাবনা কমে যায়। অলিভ অয়েলের উপকারিতা

চোখ ও হাড়ের জন্য উপকারী

একজন মানুষের প্রতিদিন যে পরিমাণ ভিটামিন প্রয়োজন হয় তার সবগুলোই অলিভ অয়েলে বিদ্যমান। অলিভ অয়েল নিয়মিত খেলে চোখের রাতকানা গ্লুকোমা ও অন্যান্য সমস্যা থেকে দূরে থাকা যায়। এছাড়াও অলিভ অয়েল হাড়ের শক্তি বৃদ্ধিতে প্রয়োজনীয়।

 রূপচর্চায় অলিভ অয়েল

রূপচর্চায় অলিভ অয়েলের বহুল ব্যবহার দেখা যায়। আধুনিক রূপচর্চায় অলিভ অয়েল গুরুত্বপূর্ণ একটি বস্তু। চোখের ঠোঁটের বিভিন্ন প্রয়োজনে অলিভ অয়েল ব্যবহার করা হয়। প্রতিদিন নিয়মমাফিক ঘুমানোর আগে সামান্য পরিমাণ অলিভ অয়েল ব্যবহারের চোখের নিচের ডার্ক সার্কেল দূর করা যায়। আবার অলিভ অয়েল ও লেবুর রস মিশিয়ে ঠোঁটে লাগালে মরা চামড়া থেকে বাচা যায়।

অলিভ অয়েলের উপকারিতা

চুলের যত্নে অলিভ অয়েল

চুলের যত্নে অলিভ অয়েল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। অলিভ অয়েলে থাকা শক্তিশালী উপাদান চুলকে আরো দৃঢ় এবং উজ্জ্বল করে। নিয়মিত অলিভ অয়েলের ম্যাসেজ করলে চুলের গোড়া মজবুত করার পাশাপাশি উজ্জ্বলতা বাড়ে। ভিটামিন ই চুলের পড়ে যাওয়া আটকায় এবং দ্রুত বৃদ্ধি ঘটায়।  অলিভ অয়েলের উপকারিতা

ত্বকের যত্নে অলিভ অয়েল

নিয়ামতি পরিমাণ অলিভ অয়েল ব্যবহার করে ত্বক সুন্দর রাখা যায়। ত্বকের প্রাকৃতিক স্থিতিস্থাপকতা বজায় রাখতে অলিভ অয়েল বিশেষ ভূমিকা পালন করে। তবে অলিভ অয়েল সব ধরনের ত্বকের জন্য সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ না। তাই ত্বকের ক্ষেত্রে অলিভ অয়েল ব্যবহার করার পূর্বে অবশ্যই চর্ম চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

আমাদের আজকের এই আলোচনার মাধ্যমে অলিভ অয়েল এর সকল উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে। আশা করি আপনারা সকল তথ্য সহজে বুঝতে পেরেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.