জ্বর অনেক রকমের হয় অনেক জ্বর আসে কাঁপুনি দিয়ে আবার অনেক জ্বর আসে ছেড়ে ছেড়ে। অনেক সময় হালকা জ্বর হয়ে থাকে গায় যেটির যন্ত্রণা বেশ কয়েকদিন ধরে হয়ে থাকে। আর এই জ্বরের মাত্রা বহু রোগ নিদর্শন করে। এ বিষয়ে ইবনে সিনা ডায়াগনস্টিক এন্ড কনসালটেশন সেন্টার বক্ষব্যাধি মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডক্টর মোহাম্মাদ আজিজুর রহমান বিস্তারিত ‌জানিয়েছেন। Read in English

তিনি বলেছেন আমরা জানি যে, কোনো রোগ নয় জ্বর হচ্ছে অনেক রোগের বহিঃপ্রকাশ। একজন সুস্থ এবং পূর্ণবয়স্ক মানুষের শরীরের তাপমাত্রা হলো ৯৮.৬ ফারেনহাইট, যখন শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পায় তখন তাকে  জ্বর বলে, অল্প অল্প জ্বর বলতে যখন শরীরের তাপমাত্রা থার্মোমিটারে ৯৯ থেকে ১০১ ফারেনহাইটের মধ্যে থাকে। 

অল্প অল্প জ্বর শরীরে যে কারণে দীর্ঘদিন ধরে থাকে

যক্ষা লিস্ফোমা, কালাজ্বর, ম্যালেরিয়া, এইচআইভি ইনফেকশন শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ফোড়া যেমন ফুসফুসের ফোঁড়া, কানেকটিভ টিস্যুর রোগ যেমন রিউম্যাটয়েড, আর্থারাইটিস,এস এল ই ষ,থাইরয়েড রোগ যেমন হাইপারথাইরজ্জিম কৃমির জ্বর ঔষধ জনিত জ্বর আরো নানা কারণে যেমন ফুসফুসের ক্যান্সার লিভার ক্যান্সার কিডনী ক্যানসার ইত্যাদি কারণে শরীরে দীর্ঘদিন ধরে অল্প অল্প জ্বর থাকে।

জ্বরের লক্ষন

দীর্ঘদিন জ্বর থাকলে তার অন্তর্নিহিত কারণ জানার জন্য রোগীর কাছ থেকে বিস্তারিত তথ্য নিতে হবে। জ্বর কখন আসে কিভাবে আসে আবার কিভাবে চলে যায়। দিনে কোন ভাগে বেশি জ্বর থাকে জ্বরের সঙ্গে অন্য কোনো উপসর্গ আছে কিনা যেমন দীর্ঘদিনের অল্প অল্প জ্বর বিকেলের দিকে আসে রাতে থাকে সকালে কমে যায় এবং শরীর ঘেমে জ্বর আস্তে আস্তে ভালো হয়ে যায়। সঙ্গে দুই সপ্তাহের বেশি কাশি থাকে। কখনো কখনো কাশির সঙ্গে রক্ত বের হয়, শরীরের ওজন কমে যায়, খাবারের অরুচি থাকে যক্ষা রোগীর সঙ্গে বসবাসের ইতিহাস থাকলে যক্ষা সন্দেহ করা হয়। 

alpo-alpo-jor

ছবিঃ ইন্টারনেট থেকে নেওয়া

জ্বর নির্ণয়

দীর্ঘদিনের জ্বরের ইতিহাসের সঙ্গে রাতে শরীর ঘামার ইতিহাস ক্ষুধামন্দা এবং শরীরের চুলকানি জন্ডিসের ইতিহাস শরীরের বিভিন্ন জায়গায় গ্ল্যান্ড ফুলে যাওয়া ইত্যাদি থাকলে লিস্ফোমা সন্দেহ করা হয়।

এছাড়া অল্প অল্প জ্বরের সঙ্গে ডানদিকের উপরের পেট ব্যথা মাঝেমধ্যে পাতলা পায়খানার ইতিহাস, পরীক্ষা করে যদি জন্ডিস বা লিভার বড় পাওয়া যায় তাহলে সন্দেহ করা হয় লিভারের ফোঁড়া হয়েছে।

কাঁপুনি দিয়ে জ্বর আসা ঘাম দিয়ে জ্বর কমা। দুর্গন্ধযুক্ত হলুদ রঙের কাশি থাকলে সন্দেহ করা হয় ফুসফুসের ফোঁড়া হয়েছে।

দীর্ঘদিনের জ্বরের সঙ্গে যদি খাবারে রুচি থাকা সত্ত্বেও ওজন কমে যায় যে স্থানে জ্বর হয়েছে সেখানে বসবাসের ইতিহাস এবং মাটির ঘরে মেঝেতে থাকার ইতিহাস পাশে গরুর ঘর থাকার ইতিহাস থাকলে এবং পরীক্ষা করে রক্তশূন্যতা দেখা দিলে পেটের উপরিভাগে চাকা থাকলে সন্দেহ করা হয় কালাজ্বর

দীর্ঘ দিনের জ্বরের ইতিহাসের সঙ্গে পায়ের গিরায় গিরায় ব্যথা এবং সকালে ঘুম থেকে জাগার সঙ্গে সঙ্গে ব্যথা বেড়ে যায় এবং মুখে ঘা গায়ে লাল লাল দাগ এর ইতিহাস থাকলে কালেক্টিভ টিস্যুর রোগ হয়েছে যেমন রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস এস এল ই হয়েছে বলে ধরা হয়।

এ ধরনের লক্ষণ দেখা দিলে খুব দ্রুত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়ে সঠিক চিকিৎসা দিয়ে এবং সঠিক পরীক্ষানিরীক্ষা করে এসব রোগ নির্ণয় করে বেশিরভাগ জ্বর ভালো করা সম্ভব।

Leave a Reply

Your email address will not be published.