সফল উদ্যোক্তা হওয়ার ৮টি উপায়: একজন সফল উদ্যোক্তা হতে হলে আপনাকে অবশ্যই যেসব বিষয় মনে রাখতে হবে তা আপনি আমাদের এই আলোচনা পড়লে জানতে পারবেন। তাই আপনি যদি নিজেকে একজন সফল উদ্যোক্তা হিসেবে দেখতে চান তাহলে আমাদের এই আলোচনাটি ভালোভাবে পড়ুন। যেসব বিষয় আপনি মাথায় রাখবেন তা হলো নিচে দেওয়া হলো। Read in English

আত্মবিশ্বাস ও ব্যর্থতার জন্য প্রস্তুত থাকা

নিজের ক্ষমতা ও যাবতীয় গুণাবলির ওপর পরিপূর্ণ আস্থাশীল ও বিশ্বাস স্থাপন খুবই গুরুত্বপূর্ণ একাতি বিষয় । আপনাকে বিশ্বাস অর্জন করতে হবে যে, সব বাধা অতিক্রম করেই আপনি আপনার লক্ষ্যে পৌঁছবেন বা পৌছাতে সক্ষম হবেন। সফল উদ্যোক্তারা তাদের কাজকে উপভোগ করেন, সেকারণে তারা অক্লান্ত, অবিরাম পরিশ্রম করে যান স্বচ্ছলতার সাথে । তাছাড়া আমাদের মাথায় রাখা উচিত যে, যেকোনো কাজের ক্ষেত্রে সফলতা ও ব্যর্থতা দু’টোই থাকে। আপনার ব্যবসার ক্ষেত্রে ব্যর্থতা আসতেই পারেকিন্তু সেটা সাময়িক । তাই এ ব্যর্থতাকে মেনে নিয়ে আপনাকে সামনে এগিয়ে যেতেই হবে। সফল উদ্যোক্তা হতে হলে আপনাকে অবশ্যই ওপরে উল্লেখিত সকল বৈশিষ্ট্যগুলো অর্জন করে ফেলতে হবে। সততার সাথে নিজেকে দক্ষ ও যোগ্য ভাবে গড়ে তুলুন। দেখবেন সবকিছুই অনেকখানি সহজ মনে হচ্ছে।

যে ১০টি কাজ আপনার কখনও করা উচিত নয়

সুস্পষ্ট ভাবে লক্ষ্য স্থির ও কঠোর পরিশ্রম

উদ্যোক্তা হিসেবে সফল হতে হলে আপনাকে অবশ্যই সুস্পষ্ট ভাবে আপনার লক্ষ্য স্থির করতে হবে। প্রতিটি কাজের ক্ষেত্রেই লক্ষ্য স্থির একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

সফল উদ্যোক্তা হওয়ার ৮টি উপায়

একজন সফল উদ্যোক্তা তার লক্ষ্যের প্রতি স্থির থাকেন সবসময় এবং সে লক্ষ্য মাথায় রেখে কঠোর পরিশ্রমের সাথে সুনির্দিষ্ট ভাবে কিছু কাজের মাধ্যমে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে থাকেন। তার মানে হচ্ছে যে, লক্ষ্যে পৌছার জন্য যত ধরনের বাধাই আসুক না কেন তা স্বেচ্ছায় মেনে নিয়ে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে।

ঝুঁকি গ্রহণ ও কৌশল অবলম্বন

যেকোনো কাজের ক্ষেত্রে আপনাকে কৌশলী হতে হবে এবং ঝুঁকি গ্রহণের মনোভাব দৃঢ় থাকতে হবে। এমনকি ক্রেতাদের অবস্থা ও বাজারের চাহিদা অনুযায়ী ব্যবসা গড়ে তুলতে হবে । অর্থাৎ ক্রেতাদের ক্রয় ক্ষমতা ও বাজারে যে পণ্যের চাহিদা রয়েছে সে পণ্য নিয়ে ব্যবসা করার চেষ্টা করতে হবে। আপনার প্রতিদ্বন্দ্বী অনেক থাকবে বাজারে তবে তারা বাজারে কী পণ্য নিয়ে আসছে সেগুলো খেয়াল রাখতে থাকুন। সবকিছুর বিবেচনা করে এনে আপনাকে ঝুঁকি নিয়ে উৎপাদন করতে হবে। বুদ্ধিমানের কাজ তখনই হবে যখন দেখবেন লাভের পরিমাণ বেশি এবং ঝুঁকির পরিমাণ কম ঠিক তখনই ঝুঁকি নেওয়াটাই হবে আসল কাজ ।

অনলাইন থেকে টাকা আয়ের উপায়। বাড়িতে বসে আয় করুন

সুনির্দিষ্ট কাজ সম্পর্কে ভালো জ্ঞান ও দক্ষতা

আপনি যেই ধরনেরই ব্যবসা বা প্রতিষ্ঠান স্থাপন করবেন না কেন সে সম্পর্কে পরিপূর্ণ জ্ঞান বা দক্ষতা থাকতে হবে শতভাগ । অর্থাৎ সে ব্যবসা বা প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে যেন পরিপূর্ণ অভিজ্ঞতা থাকে। যদি প্রয়োজন হয় সে কাজে অভিজ্ঞদের পরামর্শ নিয়ে ভালোভাবে শিখতে থাকুন তাতে করে আপনি অভিজ্ঞ হয়ে উঠবেন এবং পরবর্তীতে আপনি নিজের দক্ষতায় নিজের একটি প্রতিষ্ঠান পরিচালনায় সফল হবেন।

নেতৃত্ব দেওয়া

একজন সফল উদ্যোক্তা হতে হলে অবশ্যই মনে রাখতে হবে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেওয়ার গুণাবলি থাকতে হবে। একজন মানুষ কিন্তু সকল বিষয়ে দক্ষ হয় না। এক্ষেত্রে টিম গঠন করে একত্রতা বা সমন্বয়ের মাধ্যমে কাজ করতে হবে এবং টিম পরিচালনায় দক্ষ হতে হবে। একজন সফল উদ্যোক্তা নিজে যেমন সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন, তেমনি অন্যদেরও সঠিক পথে পরিচালনা করেন।

সফল উদ্যোক্তা হওয়ার ৮টি উপায়

কাকে কোন ধরনের কি বললে সে কিভাবে ভালো কাজ করবে— তা খুব সহজেই ধরে ফেলতে পারবেন এবং সেই অনুযায়ী অবশ্যই আচরণ করতে পারেন। কর্মীদের ভেতর থেকে তাদের সেরাটা বের করে আনার সহজাত ক্ষমতা একজন সফল উদ্যোক্তার মধ্যেই রয়েছে।

গ্রাহকদের সাথে সম্পর্ক স্থাপন ও অভিযোগ গ্রহণ

গ্রাহকদের সাথে আন্তরিকতার সাথে কথা বলতে হবে এবং হাসিমুখে তাদের অভিযোগ গ্রহণ করে যত দ্রুত সম্ভব সেগুলোর সমাধান দিয়ে দিতে হবে। এতে করে গ্রাহকদের সাথে আপনার এবং আপনার প্রতিষ্ঠানের একটি সুসম্পর্ক স্থাপন হতে থাকবে। গ্রাহকদের সাথে সম্পর্ক স্থাপনের ক্ষেত্রে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহারে আপনাকে অবশ্যই পারদর্শী হতে হবে।

জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন করার নিয়ম ২০২২

অর্থ ব্যবস্থাপনা ও হিসাব

একটি নতুন উদ্যোগ লাভের মুখ দেখতে বেশ কিছুটা সময় লাগতেই পারে। এ লাভ আসার আগ পর্যন্ত হাতে থাকা কিছু অর্থ সঠিকভাবে ব্যবহার করতে হবে। প্রয়োজনে যে সমস্ত জায়গায় অতিরিক্ত ব্যয় করা হয়ে থাকে সে সকল ব্যয় সাময়িক বন্ধ করুন এবং আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রত্যেকটি আয় ব্যয়ের হিসাব সবসময় রাখুন। এর ফলে কতটুকু লাভ হচ্ছে বা ক্ষতি হচ্ছে তা জানা যাবে কিছুটা।

শেষ কথা

” Clayton M Cristensen” নামক একজন ছিলেন আমেরিকান অর্থনীতিবিদ ও ব্যবসায়িক পরামর্শদাতা। তার লেখা একটি বই “The Innovator’s Dilemma” ব্যবসা ক্ষেত্রের একটা ক্লাসিক বই। এ বইতে দেখানো হয়েছে অনেক বড় বড় প্রতিষ্ঠান শিল্প ও প্রযুক্তির বারবার পরিবর্তনের বাজারে দীর্ঘ সময়ের জন্য তাদের নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখতে পারে না। তিনি এ বইতে আরো বলেন যে, যদি কোনো কোম্পানির সম্পদ, কার্যধারা ও মান বাজার উপযোগী না হয় তবে কোনো কিছুই সে কোম্পানিকে টিকিয়ে রাখতে পারে না বা পারবে না । উদ্যোক্তাদের বইটি অবশ্যই পড়া উচিত পথপ্রদর্শনের। তাহলে বাজারে বড় বড় প্রতিদ্বন্দ্বীদের কীভাবে মোকাবিলা করতে হয় সেটা তাঁরা সহজেই বুঝতে পারবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.